জামিয়া পরিচিতি

হযরত হাফিজ্জি হুজুর রহঃ এর আজীবন স্বপ্নের রুপকার আবূ তাহের মিসবাহ দা.বা. এর ব্যাপক বিস্তৃত ও সুদূরপ্রসারী চিন্তাধারার আলোকে প্রতিষ্ঠিত

জামিয়া ফকীহুল উম্মাহ মাদরাসা  ঢাকা

আবাসিক/অনাবাসিক

 

বিভাগ সমূহ ⇒

মাদানী নেসাব : প্রথম বর্ষেই আরবীতে কথা বলার যোগ্যতা ।
নূরানী মক্তব ও কিন্ডারগার্টেন : সম্পূর্ণ স্কুলের সিলেবাস ।
হিফযুল কুরআন : অভিজ্ঞতা সপন্ন খ্যতিমান হাফেজ ও ক্বারীদের মাধ্যমে শিক্ষাদান

(সকল বিভাগে জেনারেল শিক্ষা বাধ্যতামূলক)

উক্ত প্রতিষ্ঠানের প্রধান মুরব্বী ও উপদেষ্টা:

ফকীহুল উম্মাহ মাহ্‌মূদ হাসান গাঙ্গুহী রহঃ এর খাছ খাদিম ও প্রধান খলীফা, ও শাইখুল হাদীস আল্লামা যাকারিয়্যা রহঃ এর খলীফা হযরতুল আল্লাম মাওলানা ইব্রাহীম আফ্রীকী পান্ডূর দামাত বারকাতুহুমুল আলিয়াহ্‌ ।

উক্ত প্রতিষ্ঠানের অন্যতম মুরব্বী ও উপদেষ্টা:

ঢাকার ঐতিহ্যবাহী বারিধারা মাদানিয়া মাদরাসা এর শাইখুল হাদীস ও মুহ্‌তামিম জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের প্রধান মুরব্বী, ফকীহুল উম্মাহ মাহ্‌মূদ হাসান গাঙ্গুহী রহঃ এর বাংলাদেশের খোলাফাদের মধ্যে প্রধান খলীফা, উস্তাযুল আসাতিযা, আল্লামা নূর হুসাইন কাসেমী দামাত বারকাতুহুমুল আলিয়াহ্‌ ।

 

লক্ষ্য ও উদ্দেশ্যঃ-

★প্রতিটি শিক্ষার্থীর মাঝে আল্লাহ তায়ালার হুকুম ও রাসূল সাঃ এর আদর্শ বাস্তবায়ন।

★উত্তম চরিত্র গঠন ও সহীহ ইসলামী আক্বীদার অনুশীলন।

★ইসলামী শিক্ষা ও জাগতিক শিক্ষার সুসমন্বয়ে আগামী প্রজন্ম গড়া।

★ইহকালীন ও পরকালীন সাফল্য অর্জনের উপযোগী দক্ষ, যোগ্য, আদর্শ চরিত্র গঠন ও স্বদেশানুরাগী করে গড়ে তোলাই প্রতিষ্ঠানের অন্যতম উদ্দেশ্য।

★সাহাবায়ে কেরাম, আইম্মায়ে মুজ্তাহিদীন, আকাবিরে দীন ও সালফে সালেহীনের গবেষণাপ্রসূত জ্ঞানের আলোকে শিক্ষার্থীদেরকে কুরআন ও সুন্নাহ্-র পূর্ণাঙ্গ শিক্ষা দান করা।

★ইলমেদীন হাসিলের সাথে সাথে নেক আমল ও আখলাকে নববীর আলোকে এমন একদল আলেমে দীন তৈরি করা, যাঁরা সাহাবায়ে কিরাম ও আইম্মায়ে মুজতাহিদীনের যোগ্য উত্তরসূরি হিসেবে ওরাসাতে নববীর দায়িত্ব পালনে সক্ষম হবেন।

★শির্ক বিদ্আতসহ সর্বপ্রকার বাতিল ফেরকার মুকাবিলা ও মূলোতপাটন করতঃ ইসলামের বিশুদ্ধ আকীদা-বিশ্বাস জনগণের মাঝে প্রচার করা।

★জীবনের সর্বক্ষেত্রে শাআয়েরে দীন প্রতিষ্ঠার সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালানো।

★আল্লাহর বান্দাদেরকে আল্লাহর সাথে সম্পৃক্ত করার উদ্দেশ্যে তাযকিয়ায়ে নফসের প্রশিক্ষণ প্রদান করা।

★ইয়াতীম ও অসহায় শিশু-কিশোরদেরকে আশ্রয় দান করতঃ উত্তম শিষ্টাচার শিক্ষা দান করা।

★শিক্ষার্থীকে ইসলামের জন্য আত্মনিবেদিত মুবাল্লিগ ও দীনের একান্ত খাদেমরূপে গড়ে তোলার প্রশিক্ষণ দান করা।

★দাওয়াত ও তাবলীগে দীনের উদ্দেশে শিক্ষার্থীদেরকে বাস্তবমুখী প্রশিক্ষণ প্রদান করা।

★সর্বোপরি হালাল রিয্ক দ্বারা জীবিকা নির্বাহ করার জন্য কর্মোপযোগী মানুষ তৈরী করা।

 

“জামিয়া ফকীহুল উম্মাহ” এর নামকরনের কারনঃ

­­­­­­­­­ঐতিহ্যবাহী ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় দারুল উলূম দেওবন্দ, ভারত এর শাইখুল হাদীস, প্রধান মুফতী, মুফতিয়ে আযম ভারত, ফকীহুল উম্মাহ মাহ্‌মূদ হাসান গঙ্গুহী রহঃ এর স্বরনে উক্ত প্রতিষ্ঠানের নাম রাখা হয়েছে “জামিয়া ফকীহুল উম্মাহ ঢাকা” ।

জামিয়া ফকীহুল উম্মাহ মাদরাসার কিছু বৈশিষ্টাবলীঃ

★ রাত-দিন ২৪ ঘন্টা রুটিন মাফিক পাঠদান ও তদারকি ।
★ তালিমের সাথে সাথে উন্নত চরিত্র গঠনের জন্য তরবিয়তী জলসার ব্যবস্থা ।
★ কোলাহল মুক্ত মনোরম পরিবেশ ও নিজস্ব ক্যাম্পাস ।
★ দেশবরেণ্য আলেম-ওলামাদের সার্বিক তত্ত্বাবধানে পরিচালিত ।
★ তিন বছরে সম্পূর্ণ কুরআন হিফজের ব্যবস্থা ।
★ তালিমের সাথে সাথে তরবিয়তের সমান গুরত্বসহ ইসলামী আদর্শের বাস্তব অনুশীলন ।
★ আন্তর্জাতিক ও জাতীয় হিফযুল কুরআন প্রতিযোগিতায় অংশ গ্রহনের ব্যবস্থা ।
★ জাতীয় ও আন্তর্জাতিক হাফেজ ও ক্বারীগন কর্তৃক সরাসরি প্রশিক্ষণ ।
★ স্বল্পসময়ে হিফয ও ইয়াদের পূর্ণ নিশ্চয়তা ।
★ প্রয়োজনীয় বাংলা, অংক, ইংরেজী পাঠদান ।
★ ইংরেজী, আরবী ভাষায় কথোপকথনের যোগ্যতা অর্জন ।
★ মেধাবী শিক্ষার্থীদের জন্য বৃত্তি ও পুরস্কারের ব্যবস্থা ।
★ সার্বক্ষণিক বিদ্যুৎ ব্যবস্থা ও খাবারের জন্য বিশুদ্ধ পানির ব্যবস্থা ।
★ স্বাস্থ্যসম্মত নিরিবিলি মনোরম পরিবেশ ।
★ অমনোযোগী ছাত্রদের জন্য বিশেষ ব্যবস্থা ।
★ প্রতিদিন স্বাস্থ্যসম্মত ও সুস্বাদু তিনবেলা খাবার ও নাস্তা পরিবেশন ।
★ নিজস্ব চিকিৎসকের মাধ্যমে নিয়মিত স্বাস্থ্য পরিচর্যা ।
★ শারীরিক শাস্তির পরিবর্তন মনস্তাত্বিক পরিচর্যার মানসিকতা ।

জামিয়ার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা

★ কারিগরীবিদ্যা বিভাগ:  দীনি শিক্ষা হাসিল করার পর একজন শিক্ষার্থী যাতে কর্মজীবনে বেকার না থাকে; বরং হালাল উপায়ে জীবিকা নির্বাহ করতে সক্ষম হয় এমহৎ উদ্দেশ্যকে সামনে রেখে বিভিন্ন ধরনের কারিগরীবিদ্যা ও হস্তশিল্পে শিক্ষার্থীকে প্রয়োজনীয় জ্ঞানদান ও প্রশিক্ষণ প্রদানের লক্ষ্যে নিম্নোক্ত বিষয়য়ের উপর “ট্রেনিং-এর ব্যবস্থা গ্রহণের পরিকল্পনা জামিয়া কর্তপক্ষের রয়েছে। যেমন: (ক) কম্পিউটার প্রশিক্ষণ। (খ) ড্রাইভিং। (গ) ইলেক্ট্রিসিটি। (ঘ) সেলাই ইত্যাদি

★ স্বতন্ত্র রচনা, গবেষণা ও প্রকাশনা বিভাগ:

(ক) বাংলাভাষায় ইসলাম সম্পর্কিত আলোচনার পরিসর খুব বেশি নয়। আরবী, ফার্সী ও উর্দূ ভাষার মত বাংলাভাষায় ইসলামের ব্যাপকভাবে আলোচনা ও প্রচার- প্রসারের প্রয়োজনীয়তাকে সামনে রেখে এবং বিভিন্ন বিষয়ে গবেষণার উদ্দেশ্যে অত্র মাদ্রাসায় একটি উচ্চমানের রচনা ও গবেষণা বিভাগ খোলার পরিকল্পনা রয়েছে। আরবী, ফার্সী ও উর্দূ ভাষায় রচিত উলামায়ে কেরাম ও আকবিরে দেওবন্দের কিতাবপত্রের অনুবাদ ও সংকলন এতে অন্তর্ভুক্ত থাকবে।

(খ) বাংলা ভাষায় একটি উচ্চমানের মাসিক পত্রিকা প্রকাশ।

(গ) আরবী ভাষায় একটি উচ্চাঙ্গের বার্ষিকী প্রকাশ।

(ঘ) রচনা ও গবেষণা বিভাগ থেকে রচিত ও অনূদিত বই-পুস্তক ইত্যাদি প্রকাশ- প্রকাশনার জন্য একটি অত্যাধুনিক ছাপাখানা (প্রেস) প্রতিষ্ঠা।

★ ইয়াতীমখানা প্রতিষ্ঠা :  সমাজের অবহেলিত ইয়াতীম, গরীব ও অসহায় শিশু-কিশোরদেরকে উত্তম শিষ্টাচার তথা সুযোগ্য নাগরিকরূপে গড়ে তোলার লক্ষ্যে বৃহৎ ও ব্যাপক পরিসরে একটি স্বতন্ত্র ইয়াতীমখানা প্রতিষ্ঠার চিন্তা-ভাবনা জামিয়া কর্তৃপক্ষের রয়েছে। এ ব্যাপারে একটি মাষ্টারপ্ল্যান তৈরী করা হবে এবং আর্থিক সহযোগিতা পেলে অচিরেই উক্ত কর্মসূচি বাস্তবায়নের পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে ইন্শাআল্লাহ।

★ স্বতন্ত্র ছাত্রাবাস :  ছাত্রগণ শিক্ষকমণ্ডলির সস্নেহ তত্ত্বাবধানে থেকে যাতে উন্নত জীবন গড়ে তুলতে সক্ষম হয়, এ উদ্দেশ্যে আবাসিক ব্যবস্থাপনায় ছাত্রদেরকে মাদ্রাসার অভ্যন্তরে রাখা হচ্ছে। কিন্তু মাদ্রাসার মধ্যে স্বতন্ত্র কোন ছাত্রাবাস না থাকায় বর্তমানে ক্লাসরুমকে ছাত্রাবাস হিসাবে ব্যবহার করা হচ্ছে। একইস্থানে ক্লাস করা ও থাকা-খাওয়ার দরুন ছাত্রদের প্রায়ই অসুস্থতা ও আরাম-বিশ্রামসহ নানা ধরনের কষ্ট হচ্ছে। ভবিষ্যতে স্থান ও আর্থিক সচ্ছলতা সাপেক্ষে পৃথক ছাত্রাবাস নিমার্ণের পরিকল্পনা মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষের রয়েছে। এক্ষেত্রে ধর্মানুরাগী বিত্তবান ও দানশীল ভাই-বোনদেরকে এগিয়ে আসার উদাত্ত আহ্বান জানানো যাচ্ছে।

উক্ত জামিয়ার অন্যতম মুরব্বী ও উপদেষ্টা:

কুতুবুল আলম আমীরে শরীয়াত হযরত হাফিজ্জী হুজুর রহঃ এর জামাতা ও খলীফা উস্তাযুল আসাতিযা শাইখুল হাদীস হযরত মাওলানা আব্দুল হাই পাহাড়পুরী দামাত বারকাতুহুমুল আলিয়াহ্‌

জামিয়ার ব্যবস্থাপনা

এলাকার দীনদরদী ভাইদের পক্ষ হতে নির্বাচিত প্রতিনিধিবৃন্দের সমন্বয়ে গঠিত “৩১৩বদরী সাদৃশ্য কাফেলা” নামে একটি শক্তিশালী কমিটির সহায়তায়, মুহতামিম সাহেবের তত্ত্বাবধানে জামিয়ার প্রশাসনিক ও উন্নয়নমূলক কার্য ও ব্যবস্থাপনা সম্পাদিত হয়। পরিষদের পক্ষ হতে সাধারণ সম্পাদক সাহেব পরিষদের মতসাপেক্ষে জামিয়ার নির্মাণ-কাজ, মুহতামিমের সুপারিশ ও রিপোর্টক্রমে শিক্ষক, কর্মচারীর নিয়োগ ও বিদায়, বেতন নির্ধারণ, তাদের কাজের তদারক, ছাত্র-শিক্ষকের থাকা খাওয়ার ব্যবস্থা ও আনুষঙ্গিক অন্যান্য প্রশাসনিক কাজের তদারক করেন এবং পরিষদের পক্ষ হতে কোষাধক্ষ সাহেব সকল আয়-ব্যয়ের হিসাবসংরক্ষণের দায়িত্ব পালন করেন।

 

★প্রতিষ্ঠাতা ও প্রিন্সিপালঃ আলহাজ্ব ডা. মাওলানা মুফতী মাসূম মাহ্‌মূদী (দা.বা.) । ফাযেলে দারুল উলূম দেওবন্দ । খলীফাঃ মুফতীয়ে আযম ফকীহুল উম্মাহ্‌ মাহমূদ হাসান গাংগুহী (রহঃ), ভারত । ইমাম ও খতিব, উঃমূগদা মধ্য জামে’ মসজিদ, মূগদা, ঢাকা ।

★বিস্তারিত তথ্যের জন্য জামিয়ার অফিসে যোগাযোগ করুন।

★মোবাঃ+8801712530407, 01972530407, 01811009982

★ইমেইলঃjamiafaqihulummah@gmail.com

★লোকেশনঃ ঢাকার সায়দাবাদ/ মহাখালী/ গুলিস্তান হতে বাস যোগে মূগদা বিশ্বরোড নেমে রিক্সাযোগে মান্ডা লাল মিয়া রোড, চান মসজিদ সংলগ্ন আলহাজ্ব ইউনূস আলী সাহেবের বাড়ী # ২৩, লাল মিয়া রোড, দক্ষিন মান্ডা, মূগদা, ঢাকা ।